২৫০ ফর্মুলা থেকে ভ্যাকসিন তৈরি, করোনা এবার নির্মূল হবেই পৃথিবী থেকে!

কোভিড-১৯ বা ক’রোনাভা’ইরাসে নিছক সাধারণ কোন ফ্লু ভাই’রাস নয়।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, জিনের গঠন বদলে প্রতিনিয়ত এই ভাই’রাস নিজের চরিত্রই বদলে ফেলছে।

এই ভাই’রাসের বিশেষ স্ট্রেন সার্স-সিওভি-২-এর স্পাইক প্রোটিন জোড় বাঁধছে মানুষের শরীরের বিশেষ জিনের সঙ্গে।

বাহক কোষ বা হোস্ট সেলের সাহায্যেই আরও সংক্রামক হয়ে উঠছে ক’রোনা।

এত বেশি নিজেকে বদলাচ্ছে এই ভাই’রাস যে এর মতিগতি বোঝাই অসম্ভব হয় পড়ছে বিশ্বের বাঘা বাঘা ভাইরোলজিস্টদের কাছে।

সং’ক্র’মণ রোখার ভ্যাকসিন তৈরির প্রক্রিয়াও তাই বিলম্বিত হচ্ছে।

তবে আশার আলো এটাই যে, মা’র্কিন যুক্তরাষ্ট্র, হংকং, অস্ট্রেলিয়া, ইজরায়েল এমনকি ভারতেও

এই মারণ ভাই’রাসকে প্রতিরোধ করার উপায় আবি’ষ্কারের চেষ্টা করছেন বিজ্ঞানী-গবেষকরা। কাজও নাকি এগোচ্ছেও তরতরিয়ে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) নোভেল ক’রোনার সং’ক্র’মণকে ‘প্যানডেমিক’ বা বিশ্বজোড়া ম’হামা’রি ঘোষণা করেছে।

চীনে এখন ভাই’রাস সংক্রামিত সাত লাখের বেশি, মৃ’ত্যু হয়েছে সাড়ে তিন হাজারের বেশি।

চীনের পরেই ক’রোনা ম’হামা’রি সবচেয়ে বেশি আ’ঘাত হেনেছে ইতালি ও ইরানে।

ফ্রান্স, জার্মানি, পর্তুগাল, ব্রিটেন, আমেরিকাতেও প্রতিদিন পাল্লা দিয়ে বাড়ছে সং’ক্র’মণ ও মৃ’ত্যুর সংখ্যা।

ডব্লিউএইচও’র রিপোর্ট বলছে বিশ্বে এখনও পর্যন্ত ক’রোনা আ’ক্রান্ত হয়ে মতের সংখ্যা ৬ হাজার ৫২৩ জন।

আ’ক্রান্তের সংখ্যা অন্তত ১ লাখ ৬৯ হাজার।

আমেরিকা দাবি করেছে আজ থেকেই তারা ক’রোনাভা’ইরাসেে রোখার ভ্যাকসিনের ক্লিনিকাল ট্রায়াল শুরু করেছে।

ভাই’রাসকে নির্মূল করার জন্য কোমর বেঁ’ধে নেমেছেন অস্ট্রেলিয়ার বিজ্ঞানীরা। জো’রদার কাজ চলছে ইজরায়েল, চীন এমনকি ভারতেও।

ভ্যাকসিন তৈরির ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরুর কথা জানিয়ে মা’র্কিন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেল্থ

(এনআইএইচ) সোমবার (১৬ মার্চ) প্রেস বিবৃতি জারি করে বলেছে, ভাই’রাসের ভ্যাকসিন তৈরিই আছে।

আজ থেকেই তার ক্লিনিকাল ট্রায়াল শুরু হবে। প্রথমে ইঁদুরের উপর ও পরে মানুষের উপর প্রয়োগ করা হবে।

সিয়াটেলের কাইসার পার্মানেন্ট ওয়াশিংটন হেল্থ রিসার্চ ইনস্টিটিউটের গবেষকরা বলেছেন,

ভ্যাকসিন এখনও পরীক্ষামূলক স্তরেই আছে। আরও ১৮ মাস সময় লাগবে পুরোপুরি এই ভ্যাকসিনকে বাজারে আনতে। তার আগে নিরন্তর এর ট্রায়াল চলবে।

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেল্থের তৈরি এই ভ্যাকসিনের ফর্মুলা এখনও সামনে আনেননি গবেষকরা।

জানা গেছে, ৪৫ বছরের এক রো’গীর উপর এই ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়েছিল।

দেখা গেছে, সেই রো’গী চিকিৎসায় সাড়া দিয়েছেন। এনআইএইচের সঙ্গে এই ভ্যাকসিনের রাসায়নিক ফর্মুলা বানিয়েছে ম্যাসাচুসেটসের বায়োটেকনোলজি কোম্পানি মোডার্না।

পেনসিলভানিয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল সংস্থা ইনোভিও ফার্মাসিউটিক্যালসও ভ্যাকসিন তৈরির দৌড়ে এগিয়ে আছে। আগামী মাসেই তারা ক্লিনিকাল ট্রায়ালের রিপোর্ট সামনে আনবে।

সার্স-সিওভি-১৯ ভাইরাল স্ট্রেনের স্পাইক প্রোটিন হোস্ট সেলের সঙ্গে জোড় বাঁ’ধার আগেই তাকে থামিয়ে দিতে হবে।

বি’ষদাঁত ভে’ঙে দিলেই আর আ’ক্রমণ করতে পারবে না ক’রোনা, ভ্যাকসিন বানানোর মূল ফর্মুলা এটাই, দাবি করলেন অস্ট্রেলিয়ার তিন বিজ্ঞানী কেইথ চ্যাপেল, পল ইয়ং এবং ট্রেন্ট মুনরো। ইউনিভার্সিটি অব কুইনসল্যান্ডের এবং ন্যানোটেকনোলজি ল্যাবে ‘এস স্পাইক’ নামে এই ভ্যাকসিন তৈরির কাজ শেষ।

কুইনসল্যান্ড ইউনিভার্সিটির গবেষক কেইথ চ্যাপেল বলেছেন, ২৫০টি ভ্যাকসিনের ফর্মুলা বানানো হয়েছিল ল্যাবে। তার থেকেই ট্রায়ালে এস-স্পাইক ভ্যাকসিনকেই ক’রোনা-রোধের আদর্শ ও’ষুধ হিসেবে মনে হয়েছে বিজ্ঞানীদের। চ্যাপেল বলেছেন, এই বছরের মাঝামাঝি মানুষের উপর প্রয়োগ করা যাবে এই ভ্যাকসিন।

কী এই ‘এস-স্পাইক’ ভ্যাকসিন? অধ্যাপক এবং গবেষক মুনরো জানিয়েছেন, ক’রোনার সংক্রামক রো’গ কোভিড-১৯ এর সঙ্গে একদিকে যেমন মিডল ইস্ট রেসপিরেটারি সিন্ড্রোম (মার্স)-এর মিল আছে, তেমনি কিছুটা হলেও মিল আছে ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাই’রাসের সঙ্গে। এই ভাইরাল স্ট্রেনের কাজই হল হোস্ট সেলের প্রোটিনের সঙ্গে জুটি বেঁ’ধে কোষে এন্ট্রি নেওয়া। ফুসফুসের দফারফা করে একে একে শরীরের নানা অঙ্গ বিকল করা।

তাই গোড়াতেই যদি মোক্ষম আ’ঘাত হা’না যায় অর্থাৎ, ভাইরাল প্রোটিনকেই রুখে দেওয়া যায় তাহলে সে আর বাহক প্রোটিনের সঙ্গে জোট বাঁধতে পারবে না। নতুন এই ড্রাগে রয়েছে ল্যাবে বানানো পলিপেপটাইড অর্থাৎ অ্যামাইনো অ্যাসিডের সিকুয়েন্স যা ভাইরাল প্রোটিনকে নিষ্ক্রিয় করে দেবে এবং শরীরের রো’গ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়াবে।

চিনের বাইরে এই প্রথম কোনও ল্যাবোরেটরিতে নোভেল ক’রোনাভা’ইরাসেের জিনম সিকুয়েন্স তৈরি করেছেন অস্ট্রেলিয়ার রয়্যাল মেলবোর্ন হাসপাতালের ডাক্তার, পিটার ডোহার্টি ইনস্টিটিউটের ভাই’রাস আইডেন্টিফিকেশন ল্যাবোরেটরির প্রধান ড. জুলিয়ান ড্রুস এবং ডোহার্টি ইনস্টিটিউটের ডেপুটি ডিরেক্টর ড. মাইক ক্যাটন।

ডাক্তার মাইক ক্যাটন বলেছেন, রয়্যাল মেলবোর্ন হাসপাতালে ভাই’রাসে আ’ক্রান্ত এক রো’গীর নমুনা সংগ্রহ করে সেখান থেকেই ক’রোনাভা’ইরাসেের জিনোম সিকুয়েন্স করা হয়। টিস্যু কালচার ল্যাবে এই ভাই’রাস তৈরি করে তার গতিপ্রকৃতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

চিকিৎসক-গবেষক মাইকের কথায়, ‘গবেষণাগারে তৈরি ভাই’রাস আমাদের এর প্রতিষেধক খুঁজতে সাহায্য করবে। এই ভাই’রাসকে মা’রতে কী ধরনের অ্যান্টিবডি দরকার তার খোঁজ আমরা পেয়েই গেছি। পরবর্তী পরীক্ষানিরীক্ষা চলছে।’ মাইক আরও বলেন, দ্বিতীয়বার ভাই’রাসের জিনোম বিশ্লেষণ করে ১০০ শতাংশ নিশ্চিত হওয়া গেছে কীভাবে এই মারণ-ভাই’রাসকে রোখা যাবে। ডোহার্টি ইনস্টিটিউটের আরও এক মুখ্য গবেষক জুলিয়ান ড্রুসও রয়েছেন এই প্রজেক্টে। তিনি বলেছেন, ‘অস্ট্রেলিয়ার বিজ্ঞানীদের আবি’ষ্কার বড় চমক আনতে চলেছে। প্রা’ণঘা’তী ভাই’রাসের সং’ক্র’মণ নির্মূল হবে পৃথিবী থেকে।’

সূত্র- দ্য অস্ট্রেলিয়ান

Updated: 20/03/2020 — 10:42 AM